উন্নতি দেখলে দেশের কিছু কুলাঙ্গার ষড়যন্ত্র করে বেড়ায় : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আগামী নির্বাচন আমাদের জন্য একটা চ্যালেঞ্জ। মানুষের উন্নতি দেখলে কিছু কুলাঙ্গার দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে ও অপপ্রচার চালায়। যারা আমাদের স্বাধীনতা যুদ্ধে সমর্থন দেয়নি, সেদেশের সঙ্গেই হচ্ছে তাদের আত্মীয়তা। আজ সোমবার (৫ জুন) আওয়ামী লীগের বিভিন্ন জেলার নেতারা গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি এসব কথা বলেন।

দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চলছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী দলীয় নেতাদের উদ্দেশে বলেন, ‘দেশে ধারাবাহিক গণতন্ত্র আছে বলেই আমরা গত সাড়ে ১৪ বছরে অভাবনীয় উন্নয়ন করতে পেরেছি। আওয়ামী লীগ সরকারের হাত ধরেই বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হয়েছে। আমরা বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ দেশে পরিণত করতে কাজ করে যাচ্ছি।’

আওয়ামী লীগকে আরও শক্তিশালী করার জন্য নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি বিদেশে গেলে সবাই আমার কাছে জিজ্ঞেস করে—আপনি বাংলাদেশকে কীভাবে এত উন্নত করলেন? আপনার হাতে কি ম্যাজিক আছে? আমি তাদের বলি—আমার হাতে কোনো ম্যাজিক নেই, আমার আছে একটি শক্তিশালী সংগঠন। আমরা সুষ্ঠু পরিকল্পনা নিয়ে জনগণের জন্য কাজ করি বলেই এত উন্নত করতে পেরেছি।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘যখনই দেশের উন্নতি হয়, তখনই এই বাংলাদেশেরই কিছু কুলাঙ্গার আছে যারা বাংলাদেশের বিরুদ্ধে সব জায়গায় বদনাম করে বেড়ায়। তারা বিদেশে দেশের বিরুদ্ধে মিথ্যা বলে বেড়ায়। আর কিছু দেশি-বিদেশি অনুদানের টাকা পাওয়ার জন্য বাংলাদেশ সম্পর্কে ভ্রান্ত ধারণা দেয়। আর যারা দেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে না, তাদের কিছু আওলাদ-বুনিয়াদ আছে, তারা সারাক্ষণ শুধু দেশের বদনাম করে বেড়ায়।’

আওয়ামী লীগ দেশবাসীর জন্য ন্যয়বিচার প্রাপ্তির পথ তৈরি করে দিয়েছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘মানুষ যাতে ন্যায়বিচার পায় আমরা সেই ব্যবস্থা করে দিয়েছি। স্বল্প সময়ে ভোগান্তি ছাড়াই মানুষ যাতে সুবিচার পায় সেজন্য সরকার বিচারব্যবস্থাকে ডিজিটাল করে দিয়েছে।’